Learn Money

Marketing

supply-chain-bangla

সাপ্লাই চেইন কি? সাপ্লাই চেইনের আদ্যোপান্ত

সাপ্লাই চেইন হলো একটি কোম্পানি এবং তার সরবরাহকারীদের মধ্যে একটি নেটওয়ার্ক যা চূড়ান্ত ক্রেতার কাছে একটি নির্দিষ্ট পণ্য উৎপাদন এর পর থেকে সমস্ত কার্যাবলী সমাপ্ত করা এবং বিতরণের মাধ্যমে পৌঁছে দেওয়া। এই নেটওয়ার্কে বিভিন্ন কাজ, মানুষ, সত্তা, তথ্য এবং সংস্থান অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। সাপ্লাই চেইন হচ্ছে পণ্য বা সেবা যা তার আসল অবস্থা থেকে গ্রাহকের কাছে পেতে যে পদক্ষেপগুলি নেয় তাকেই সহজ অর্থে বুঝানো হয়।

market-bangla

মার্কেট কি এবং এর প্রকারভেদ

দৈনন্দিন জীবন যাপনে মার্কেটের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে। পণ্য ছাড়া আমাদের জীবন অচল। কিন্তু সেই পণ্য ক্রয়ের জন্য আমাদের যেতে হয় মার্কেট অথবা বাজারে। এখন দেখে নেওয়া যাক- মার্কেট আসলে কি? সাধারণত মার্কেট বলতে একটি নির্দিষ্ট স্থানকে বোঝায়, যেখানে পণ্য ক্রয়-বিক্রয় হয়। কিন্তু অর্থনীতির ভষায় মার্কেট বলতে কোন স্থানকে বোঝায় না, বরং ক্রয়-বিক্রেতার দর কষাকষির মাধ্যমে পণ্য ক্রয়-বিক্রয় করাকে বাজারে বলে। ক্ষেত্রবিশেষে বাজার অনেক রকমের হয়ে থাকে: পাটের বাজার,স্বর্ণের বাজার, গমের বাজার, সবজির বাজার এছাড়া আরো অনেক রকমের পণ্যের বাজার রয়েছে।

how-to-target-market-bangla

টার্গেট মার্কেট কিভাবে নির্ধারণ করবেন?

পণ্যের টার্গেট মার্কেট না জেনে পণ্য বাজারে ছেড়ে দিলে ভবিষ্যতে ব্র্যান্ডটিকে আইডেন্টিটি ক্রাইসিসে পরতে হতে পারে। কারণ, সঠিক প্লেসমেন্ট না থাকলে উক্ত পণ্য ভোক্তাদের মস্তিষ্কে কোনো নির্দিষ্ট স্থান দখল করতে পারে না। তাই পণ্য বাজারজাতকরণের পূর্বে অবশ্যই টার্গেট মার্কেট নির্ধারণের কাজটি করে ফেলতে হবে। আপনার পণ্য কি ধরনের সমস্যা সমাধান করে, কাদের জন্য এই পণ্য এবং প্রতিদ্বন্দিদের মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি বিশ্লেষণের মাধ্যমে সহজেই টার্গেট মার্কেট সিলেক্ট করা যায়।

white-label-marketing-bangla

হোয়াইট লেভেল মার্কেটিং কী? হোয়াইট লেভেল মার্কেটিং নিয়ে বিস্তারিত

হোয়াইট লেভেল মার্কেটিং এ একটি কোম্পানি অন্য একটি কোম্পানির পণ্য বা কোম্পানি থেকে কোনো পণ্যের আইডিয়া, সার্ভিস বা মার্কেটিং কৌশল নিজের নামে ব্যবহার করে। একটি ক্রমবর্ধমান ব্যবসা বা কোম্পানি, কোম্পানির দক্ষতা এবং উৎপাদনশীলতা বৃদ্ধি করার জন্য বাইরের কোনো সার্ভিস নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয় এবং সেই সার্ভিস নিজের নামে সরবরাহ করে আর এটিই হচ্ছে হোয়াইট লেভেল মার্কেটিং। ব্যবসা বৃদ্ধি এবং অধিক মানুষের কাছে পৌছানোর জন্য একটি কোম্পানি মূলত হোয়াইট লেভেল মার্কেটিং করে থাকে।

marketing-evolution-bangla

মার্কেটিং-এর বিবর্তন (ঐতিহাসিক পার্সপেক্টিভ)

মার্কেটিং বলতে অধিকাংশ মানুষ শুধু পণ্য বা সেবা বিক্রয়ের সাথে সম্পর্কিত কার্যবলিগুলোকে জেনে থাকনে। তবে, মার্কেটিং পূর্ণ কাজ হচ্ছে - কাস্টমারদের চাহিদা নিরুপণ করে স্ট্র্যাটেজি তৈরি করা, তাদের সাথে সাবলীল সম্পর্ক স্থাপণ করা এবং কাস্টমারদের নির্দিষ্ট কিছু ভ্যালু অফার করার মাধ্যমে দীর্ঘমেয়াদী লক্ষ্য অর্জন করা। তবে এই পর্যন্ত আসতে মার্কেটিং-কে যেতে হয়েছে বেশি কিছু পরিবর্তনের মধ্য দিয়ে, সেগুলো হচ্ছে - প্রোডাকশন-অরিয়েন্টেড যুগ, সেলস-অরিয়েন্টেড যুগ, মার্কেটিং-অরিয়েন্টেড যুগ, সোসাইটাল-অরিয়েন্টেড মার্কেটিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং যুগ।

marketing-myopia-bangla

মার্কেটিং মায়োপিয়া কী? মার্কেটিং মায়োপিয়া নিয়ে বিস্তারিত

একটি কোম্পানি যখন শুধুমাত্র তার পণ্যের উপর ফোকাস করে, তার গ্রাহকদের চাহিদা মেটাতে ব্যর্থ হয় এবং গ্রাহকের চাহিদা উপেক্ষা করে তার পণ্য বা সার্ভিসের ব্যপক জনপ্রিয়তার দিকে নজর দেয় তখন সেটি হচ্ছে মার্কেটিং মায়োপিয়া। সময়ের সাথে বাজার চাহিদা পরিবর্তিত হয়, এবং সফল কোম্পানিগুলি এই পরিবর্তনগুলোর সাথে নিজেদের পণ্য পরিবর্তন করে তাল মিলিয়ে চলার চেষ্টা করে। অন্যদিকে বাজার এবং গ্রাহক চাহিদার পরিবর্তনের সাথে কোনো কোম্পানি তার পণ্য পরিবর্তন না করলে সেটা মার্কেটিং মায়োপিয়ার অন্তর্ভুক্ত হতে পারে।

inbound-marketing-bangla

ইনবাউন্ড মার্কেটিং কী? ইনবাউন্ড মার্কেটিং নিয়ে বিস্তারিত

ইনবাউন্ড মার্কেটিং হলো একটি ডিজিটাল মার্কেটিং কৌশল যেখানে কোনো ব্যবসা বা কোম্পানি ক্রয় যাত্রার বিভিন্ন পর্যায়ে (যেমন সচেতনতা, বিবেচনা এবং সিদ্ধান্ত) তার আদর্শ ক্রেতাদের মনোযোগ আকর্ষণ করে এবং আউটবাউন্ড মার্কেটিং এর মাধ্যমে মনোযোগের জন্য প্রতিযোগিতা করার পরিবর্তে তাদের খুঁজে বের করে। এটি মূলত উচ্চ-মানের লিডের সাথে আস্থা তৈরি করতে দেয় যারা কোনো ব্যবসা বা কোম্পানির প্রোডাক্ট বা সার্ভিসে সক্রিয় আগ্রহ প্রদর্শন করে।

outbound-marketing

আউটবাউন্ড মার্কেটিং কী? আউটবাউন্ড মার্কেটিং নিয়ে বিস্তারিত

আউটবাউন্ড মার্কেটিং হচ্ছে কোনো কোম্পানির সম্ভাব্য গ্রাহকের কাছে বিভিন্ন ঐতিহ্যবাহী মাধ্যমগুলো যেমন মেইল, বিলবোর্ডস, টেলিভিশন এড ইত্যাদির মাধ্যমে পৌছানো। অর্থ্যাৎ আউটবাউন্ড মার্কেটিং তখনই ঘটবে যখন একটি কোম্পানি সাধারণ মিডিয়া বিজ্ঞাপনের (যেমন টিভি বিজ্ঞাপন, বিলবোর্ড, সংবাদপত্র) মাধ্যমে বা সরাসরি এবং ব্যক্তিগত যোগাযোগের মাধ্যমে (যেমন মিটিং, কোল্ড কলিং এবং ঠান্ডা ইমেল) মাধ্যমে গ্রাহকদের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা করে।

inbound-vs-outbound-bangla

ইনবাউন্ড এবং আউটবাউন্ড মার্কেটিং এর মধ্যে পার্থক্য

ইনবাউন্ড মার্কেটিং এমন একটি কৌশল গ্রহণ করে যেখানে গ্রাহকরা কোম্পানির কাছে আরও অর্গানিকভাবে আসে, যেখানে আউটবাউন্ড মার্কেটিং গ্রাহকদের কাছে সরাসরি পৌঁছানোর সাথে জড়িত। ইনবাউন্ড এবং আউটবাউন্ড মার্কেটিং পদ্ধতি লিড জেনারেশন এবং সেলসকে ভিন্ন ভিন্ন উপায়ে ব্যবহার করে, কিন্তু উভয় প্রকার মার্কেটিং আপনার যেকোনো ব্যবসা দুর্দান্ত সাফল্যের দিকে নিয়ে যেতে পারে।

holistic-marketing-bangla

হোলিস্টিক মার্কেটিং কী? হোলেস্টিক মার্কেটিং নিয়ে বিস্তারিত

হোলিস্টিক মার্কেটিং বলতে এমন এক মার্কেটিং কৌশল বোঝায় যা একটি ব্যবসার পুরো বিষয় এবং বিভিন্ন মার্কেটিং চ্যানেলকে একটি সিস্টেম হিসাবে বিবেচনা করে। এই পদ্ধতির অধীনে, বিভিন্ন বিভাগের সাথে একটি ব্যবসা একত্রিত হয়। ফলস্বরূপ, বিভাগগুলি আন্তঃসংযুক্ত মার্কেটিং কার্যক্রমে সহযোগিতা করে। হোলিস্টিক মার্কেটিং একটি ঐক্যবদ্ধ এবং ইতিবাচক ব্যবসার চিত্র তৈরি করে। তাই এটি গ্রাহকদের প্রতিযোগীর কাছে না নিয়ে গিয়ে কোনো ব্যবসার পণ্য বা পরিষেবা কিনতে উৎসাহিত করে।

segmentation-targeting-positioning-bangla

STP (সেগমেন্টেশন, টার্গেটিং এবং পজিশনিং) মার্কেটিংয়ের সম্পূর্ণ গাইডলাইন

STP হচ্ছে এমন একটি মার্কেটিং মডেল যা আপনাকে আপনার সম্ভাব্য কাস্টমারদের বিভিন্ন সেগমেন্টে ভাগ করতে, সেই সেগমেন্টগুলোকে টার্গেট করতে এবং আপনার পণ্য বা সেবা এমনভাবে পজিশনিং করতে সাহায্য করে যেন আপনার কাস্টমাররা সহজেই তা ক্রয় করতে পারেন। STP এর পূর্ণরূপ হচ্ছে - সেগমেন্টেশন, টার্গেটিং এবং পজিশনিং।

emotional-marketing-bangla

ইমশোনাল মার্কেটিং (Emotional Marketing)

কোম্পানি যখন নিজের প্রোডাক্ট/ সার্ভিসের ফিচারগুলো বাধা ধরা নিয়মে মার্কেটিং এর মধ্যে বর্ণনা না করে কাস্টমারের একটি ইমোশন খুজে বের করে এবং একটি গল্প বা ঘটনার মধ্যে দিয়ে সেই ইমোশোনকে আঘাত করে তাদের প্রোডাক্ট/সার্ভিসের মাধ্যমে একটা আশার আলো বা সমাধান দেখায়, তখন এই পুরো প্রোসেসকে বলা হয় ইমোশনাল মার্কেটিং।

demarketing-bangla

ডিমার্কেটিং (DeMarketing)

ডিমার্কেটিং হল গ্রাহকের চাহিদা নিরুৎসাহিত করার লক্ষ্যে মার্কেটিং। যে পক্রিয়ার মাধ্যমে কোনো কোম্পানি তাদের পণ্যের মূল্য এবং চাহিদা উভয় নিয়ন্ত্রণ করে তাই হচ্ছে ডিমার্কেটিং। চমৎকার এই মার্কেটিং স্ট্রাটেজিটি যেকোনো কোম্পানিকে লাভ বা সম্প্রসারণের লক্ষ্যে পৌঁছাতে সাহায্য করতে পারে।

ambush-marketing-bangla

অ্যাম্বুশ মার্কেটিং (Ambush Marketing)

কোনো ইভেন্টের অফিশিয়াল স্পন্সর না হয়েও যখন কোনো কোম্পানী উক্ত ইভেন্টের স্পটলাইটে চলে আসে বা আসার চেষ্টা করে, তখন তাকে অ্যাম্বুশ মার্কেটিং বলা হয়। কখনো এটি পূর্ব-পরিকল্পিত উপায়ে করা হয়, আবার কখনো অনাকাঙ্ক্ষিতভাবে’ও এটি হয়ে যায়। বিশেষ করে বিভিন্ন স্পোর্টস ইভেন্টে অ্যাম্বুশ মার্কেটিং-এর চিত্র দেখা যায়।

five-cs-of-marketing-bangla

মার্কেটিং এ ৫ সি (5 C's Of Marketing)

মার্কেটিং এর ৫ সি হল মার্কেটিং এর সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ পাঁচটি ক্ষেত্র। মার্কেটাররা যখন মার্কেটিং সিদ্ধান্ত নেয়, তখন তাদের মার্কেটিং এর পাঁচটি সি বিবেচনা করা উচিত। কোম্পানি, গ্রাহক, সহযোগী, প্রতিযোগী এবং জলবায়ু হচ্ছে পাঁচটি সি এর স্ট্যান্ড। যখন আমরা একটা মার্কেটিং পরিকল্পনা তৈরি করি বা একটি মার্কেটিং কৌশল তৈরি করি তখন পাঁচটি সি একটি নির্দেশিকা হিসাবে কাজ করে।

surrogate-marketing-bangla

সারোগেট মার্কেটিং (SURROGATE MARKETING)

একটি কোম্পানি যখন তার একটি (প্রচলিত আইনে বিজ্ঞাপনের জন্য বৈধ নয় এমন) পণ্যকে বিজ্ঞাপন করার জন্য অন্য একটি (বৈধ) পণ্যকে ব্যবহার করে বিজ্ঞাপন করে থাকে তাই সারোগেট মার্কেটিং। যেমন: বিয়ার বিজ্ঞাপনের জন্য বৈধ নয় কিন্তু "Kingfisher" এয়ারলাইন্স এর বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে "Kingfisher" এর বিজ্ঞাপন করে যাচ্ছে। এতে করে আইনও যেমন ভাঙ্গা হলো না তেমনি আবার মানুষের মাঝে নিজ প্রতিষ্টানকে পরিচয় করিয়েও দেওয়া গেলো।

digital-marketing-bangla

ডিজিটাল মার্কেটিং কি এবং কেন গুরুত্বপূর্ণ? ডিজিটাল মার্কেটিং এর ক্ষেত্রসমূহ

মূলত মার্কেটিং এর যে প্রক্রিয়া বা ধারণাগুলো রয়েছে সেসব ধারণাগুলোকে প্রযুক্তির মাধ্যমে আধুনিকভাবে উপস্থাপন বা ব্যবহার করাই ডিজিটাল মার্কেটিং। ডিজিটাল মার্কেটিং-এ একদিকে যেমন ব্যয় হয় স্বল্প ঠিক তেমনই সময়’ও লাগে কম। আর তাছাড়া বয়স, লিঙ্গ, অঞ্চল ইত্যাদি বিষয় একদম নির্দিষ্ট করে দিয়ে প্রচারণা চালানো সম্ভবপর হয়ে উঠে ডিজিটাল মার্কেটিং এর মাধ্যমে।

7ps-of-marketing-bangla

মার্কেটিং এর ৭'পি (7P’s of Marketing)

মার্কেটিং-এর ৭’পি বলতে মূলত বোঝানো হয় প্রোডাক্ট, প্রাইস, প্লেইস, প্রোমোশন, পিপল, প্রসেস ও ফিজিকাল এভিডেন্স। ৭’পি-এর সবগুলো এলিমেন্ট ব্যবহার করে একটি পরিপূর্ণ মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি তৈরি করা হয় যেখানে প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট, প্রাইসিং, ডিস্ট্রিবিউশন, কমিউনিকেশন ও কাস্টমার এক্সপিরিয়েন্সকে প্রাধান্য দেয়া হয়। এতে করে কাস্টমারের চাহিদাকে পূরণ করে ব্যবসায়ের লক্ষ্য অর্জন করা সম্ভব হয়।